রাজশাহীতে সরকারি কর্মচারীদের সাতদফা দাবিতে বিভাগীয় সমাবেশ অনুষ্ঠিত

শেয়ার করুন

বিস্তারিত দেখুন নিচের ভিডিও লিংকে আকতারী আলমের প্রতিবেদনে…

সাতদফা দাবি আদায়ের লক্ষে রাজশাহীতে বিভাগীয় সমাবেশ করেছেন সরকারি কর্মচারীবৃন্দ।
আজ শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত রাজশাহীর হেলেনাবাদ কলোনি মাঠে ‘বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী দাবি আদায় ঐক্য পরিষদ’ এর আয়োজনে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
সমাবেশে বিভিন্ন সংগঠনের ব্যানারে বিভাগের আট জেলার বিভিন্ন দফতরের কর্মচারীরা অংশ নেন।
সমাবেশে ১১-২০ গ্রেডের সরকারি চাকরিজীবী অধিকার আদায় ফোরামের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি আব্দুস সোহেলের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারি দাবি আদায় ঐক্য পরিষদের মুখ্য সমন্বয়ক ওয়ারেছ আলী। এসময় সংগঠনের সমন্বয়ক মাহমুদ হাসান, আনোয়ার ইসলাম তোতা ও বাংলাদেশ সরকারী কর্মচারী উন্নয়ন পরিষদের সহ-সভাপতি আশফাকুল আশেকীনসহ সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।

বক্তাগণ বলেন, কমিশন গঠন করে নবম পে স্কেল বাস্তবায়ন, পে স্কেল বাস্তবায়নের আগে অন্তবর্তীকালীন সময়ে ১১ থেকে ২০ গ্রেডের কর্মচারীদের ৫০ ভাগ মহার্ঘ্য ভাতা প্রদান, ১০ ধাপে বেতন স্কেল নির্ধারণসহ পে কমিশনে কর্মচারী প্রতিনিধি রাখা, সচিবালয়ের মতো সকল দফতর, অধিদফতর ও সংস্থায় পদ-পদবী পরিবর্তনসহ এক ও অভিন্ন নিয়োগবিধি প্রনয়ণ; আনুতোষিকের হার ৯০ শতাংশের স্থলে ১০০ শতাংশ নির্ধারণ ও পেনশন গ্রাচুইটি ১ টাকার সমান ৫০০ টাকা নির্ধারণ করার দাবি জানানো হয়। এ ছাড়া আউটসোর্সিং পদ্ধতি বাতিল, জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির সঙ্গে সমন্বয় করে ভাতা পুনঃনির্ধারণ, চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ বছর ও অবসরের বয়সসীমা ৬২ বছর নির্ধারণ, ব্লক পোস্টে কর্মরত কর্মচারীসহ সব পদে কর্মরতদের পদোন্নতি বা ৫ বছর পর পর উচ্চতর গ্রেড দেওয়ার দাবি জানানো হয়।
সমাবেশে বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী সংহতি পরিষদ, বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি, বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমাজ, বাংলাদেশ তৃতীয় শ্রেণী সরকারি কর্মচারী সমিতি, বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী কল্যাণ ফেডারেশনসহ আরও বেশকিছু সংগঠনের ব্যানারে সরকারি কর্মচারীবৃন্দ অংশ নেন।